সিলেটমঙ্গলবার , ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. এক্সক্লুসিভ
  5. কৃষি ও প্রকৃতি
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলা
  8. গণমাধ্যম
  9. জবস
  10. জাতীয়
  11. জোকস
  12. টপ নিউজ
  13. তথ্যপ্রযুক্তি
  14. দেশে বাইরে
  15. ধর্ম

বিনোদন রিমিক্সের নামে শ্রোতাপ্রিয় পুরনো গান আবেদন হারাচ্ছে

পুর্বের আলো অনলাইন ডেস্ক
আপডেট : নভেম্বর ৫, ২০২২
Link Copied!

রিয়েল তন্ময় আমাদের যেসব গান শ্রোতাদের মনে চিরসবুজ হয়ে রয়েছে, সেসব গন চিরসবুজ হয়েছে হৃদয় ছোঁয়া কথা, সুর ও সঙ্গীতের কারণে। দেখা যাচ্ছে, সেসব গান এখন নতুন করে। গাওয়ার নামে মূল সুর ও সঙ্গীত, অনেক ক্ষেত্রে বিকৃত করে উপস্থাপন করা হচ্ছে। এতে শ্রোতাদের মনে সেই গানটির যে মৌলিক আবেদন। তা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। চেনা সুর অচেনা হয়ে যাচ্ছে তারা বিরক্ত হচ্ছে।

এমন অনেক গান গাওয়া হচ্ছে ভিন্ন সুরে। অথচ যাঁর কণ্ঠে ওই গানটি বিখ্যাত হয়েছে, তাঁর। অনুমতি নেয়া হচ্ছে না। ভুল সুরে, ভুল উচ্চারণে, মানহীন শব্দে হরহামেশাই গাওয়া হচ্ছে গানগুলাে। সঙ্গীতজ্ঞরা বলছেন, একটা সময় ক্যাসেট প্লেয়ারে গান শােনার বিষয়টি ব্যাপকভাবে প্রচলিত ছিল। ক্যাসেটে গানের অ্যালবাম প্রকাশ করা হতাে। এরপর সিডি, এমপিতে গান শােনা শুরু হলে হারিয়ে যায় ক্যাসেট যুগ।

বর্তমানে এসব ছাড়িয়ে জায়গা করে নিয়েছে অনলাইনে গানের প্রকাশনা। ইউটিউব, ফেসবুকের মাধ্যমে শ্রোতারা যেকোনাে সময় যেকোনাে স্থান থেকে উপভােগ প্রয়ােজনে ভিডিও করা দোষের অনীহা রয়েছে। বেশির ভাগ শিল্পী হচ্ছে গান। একসময় গান রচনা করতে পারছেন সেইসব গান।

কিছু নয়, তবে গান এবং ভিডিও প্রাতিষ্ঠানিক সঙ্গীত শেখার দিকে করা হতাে এই ভেবে যে, গানটির এখন শিল্পীরা ইউটিউবেই গান দুটোর সমন্বয় খুবই জরুরি। গানের মনােযােগী নয়। নতুন শিল্পীদের আবেদন যেন স্থায়ী হয়। এসময়ের প্রকাশ করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ বােধ চেয়ে ভিডিওর ওপর জোর দেয়ার মধ্যে আগের শিল্পীদের মতাে সকালে গানে সেই আবেদন খুব কম করে।

বিনোদন রিমিক্সের নামে শ্রোতাপ্রিয় পুরনো গান আবেদন হারাচ্ছে

দেখা যাচ্ছে, যেকেউ গায়ক কারণে গানটি শ্রোতাদের মনােযােগ উঠে রেওয়াজ করা, ভাল গান শােনা থাকে। ফলে নিমিষে হারিয়ে যায়। হয়ে যাচ্ছে। সেসব অধিকাংশ আকর্ষণ করতে ব্যর্থ হয়।

একই কিংবা নতুন সুর নিয়ে ভাবনা এবং সাময়িক আনন্দ দিলেও স্থায়ী হচ্ছে গানের সুর, কথা, ছন্দ কিংবা সাথে পুরানাে গানগুলাের রিমিক্স পরিশ্রম করার মনমানসিকতার না। আগের মতাে কেউ আর মনে রচনা মাধুর্যপূর্ণ ও সমৃদ্ধশালী নয়। করার ফলে সেগুলাের মৌলিকত্ব অভাব রয়েছে।

দেশে এখন সঙ্গীত রাখে না। গানকে স্থায়ী করার সঙ্গীতজ্ঞরা মনে করেন, শ্রোতাদের হারাচ্ছে। স্বর্ণালী দিনের গানের শিক্ষা, চর্চার নানা প্রতিষ্ঠান গড়ে জন্য প্রয়ােজন সঙ্গীতের প্রতি রুচি পরিবর্তনে মানসম্মত গান খুব সুর, কথা কিংবা কণ্ঠে সুরেলা ধ্বনি উঠেছে। কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সঙ্গীতপরিচালক, গীতিকার, সুরকার।

কম তৈরি হচ্ছে। এছাড়া গনের এখন আর গানগুলােতে লক্ষ্য করা সঙ্গীত বিভাগও রয়েছে। তবে ও শিল্পীদের সময় নিয়ে গবেষণা ও চেয়ে এর ভিডিওর ওপর বেশি যায়না। সঙ্গীত সংশ্লিষ্টরা মনে মানসম্মত শিল্পী তৈরি হচ্ছে না। চর্চা করা।

আগে যেভাবে একেকটি জোর দেয়ায় গানের চেয়ে সেদিকে করছেন, নতুন প্রজন্মের শিল্পীদের বরং ভুল সুরে, ভুল উচ্চারণে, কালজয়ী গান রচিত হতাে সেদিকে বেশি দৃষ্টি চলে যাচ্ছে। সময়ের মধ্যে গান ভাল করে রপ্ত করার প্রতি মানহীন শব্দে হরহামেশাই গাওয়া দৃষ্টি দেয়া।

  • এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।