সিলেটমঙ্গলবার , ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. এক্সক্লুসিভ
  5. কৃষি ও প্রকৃতি
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলা
  8. গণমাধ্যম
  9. জবস
  10. জাতীয়
  11. জোকস
  12. টপ নিউজ
  13. তথ্যপ্রযুক্তি
  14. দেশে বাইরে
  15. ধর্ম

কার আয়ে সংসার চলে

পুর্বের আলো অনলাইন ডেস্ক
আপডেট : নভেম্বর ১৪, ২০২২
Link Copied!

কার আয়ে সংসার চলে,রাবেয়া বেবী একটি ইনসিওরেন্স কোম্পানিতে চাকরি করেন জুথি রহমান। স্বামী সোহাগ সাহান একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। করোনাকালে ২০২০ সালের মাঝামাঝি চাকরি হারান সোহাগ। তারপর অনেক চেষ্টা করে একটি চাকরি জোগাড় করতে পারেননি।

সে থেকেই বেকার। স্ত্রীর আয়ে চলছে সংসার। বাড়ি ভাড়া, দুই বাচ্চার স্কুল, খাওয়াখরচ সব মিলিয়ে টেনেটুনে চলছে সংসার। কাজের জন্য সোহাগ চেষ্টা করছেন কিন্তু হচ্ছে না। আগেও বাড়ির বাজার বাচ্চাদের স্কুলে নেওয়া—এসব দায়িত্বগুলো সোহাস পালন করতেন। এখনো করেন। রান্নাটা করেন জুথি। স্ত্রীর আয়ে সংসার চলে, এতে কোনো সমস্যা নেই বলে জানান সোহাগ। তবে নিজের চাকরি নেই বলে টাকা-পয়সার যে টানাটানি যায়, তা নিয়ে তার মন খারাপ হয়।

করোনার আগে যেখানে সপ্তাহ-মাসে দু-একবার বাচ্চাদের নিয়ে বেড়াতে যেতেন, বাইরে খেতেন, সেখানে এখন শুধুই আত্মীয়স্বজনদের সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া হয়। জুথি বলেন, আমরা মুখে সমান অধিকারের কথা বলব কিন্তু সমান দায়িত্ব নেব না, তাতো হয় না। শুধু স্বামীর আয়ে সংসার চলতে পারলে কেন স্ত্রীর আয়ে সংসার চলবে না। আমিও সোহাগের সঙ্গে একই কথা বলব, আমাদের আর্থিক কষ্ট হচ্ছে—এটাই সমস্যা। আর কোনো সমস্যা নেই। এর মধ্যে সোহাগ এক বেলা করে বন্ধুর একটি দোকানে বসছে এতে কিছুটা সহযোগিতা হচ্ছে।

কার আয়ে সংসার চলে

‘নারী যখন আয় করছেন তখন সিদ্ধান্তটা

তিনি নেবে এমন পরিস্থিতিও হতে পারে’

—অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম

অধ্যাপক সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

করোনাকালে অনেক নারী-পুরুষ চাকরি হারান—এটা একটা বাস্তবতা। এজন্য কোনো কোনো সংসার স্ত্রীর আয়ে চলতে পারে। কিন্তু আমাদের সমাজে এখন এমন অবস্থা তৈরি হয়েছে যে, স্ত্রী স্বামীর চেয়ে উচ্চপদে কাজ করছেন। স্বামী সাধারণ চাকরি করেন, স্ত্রী মেধাবী চিকিত্সক কিংবা প্রকৌশলী। এজন্য সংসারে বৈষম্য সৃষ্টি হতে পারে। ‘নারী যখন আয় করছেন তখন সিদ্ধান্তটা তিনি নেবে এমন পরিস্থিতিও হতে পারে’—তা নিয়ে দ্বন্দ্বও হতে পারে। সমাজে পুরুষ আয় করে সংসার চালালে তার মধ্যে যে অহংকার থাকে, নারীর ক্ষেত্রেও তা হতে পারে। কারণ আমাদের সামনে এমন কোনো আদর্শ নেই; যা থেকে আমরা শিক্ষা নিতে পারি।

‘হীনম্মন্যতা দূর করতে হবে। আমরা

বলি পুরুষতান্ত্রিকতা’

—ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ

সহযোগী অধ্যাপক

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট

কোনো ‘সেনসেবল’ মানুষের স্ত্রী বেশি আয় করলে কিংবা স্ত্রীর টাকায় সংসার চললে সমস্যা হওয়ার কথা নয়। যদি তিনি হীনম্মন্যতায় ভোগেন তবেই সমস্যা হতে পারে। সংসার অর্থই হলো সমভাবে সার করা। এখানে নারী পুরুষ সমান। তাদের সম্মান সমান হলেই কোনো সমস্যা থাকবে না। তাই সম্মানটা থাকতে হবে। কে আয় করে, কার টাকায় সংসার চলে—এটা বিষয় না। বিষয়টা হচ্ছে, সংসার দুজনের—দায়িত্ব দুজনের। ‘হীনম্মন্যতা দূর করতে হবে। আমরা বলি পুরুষতান্ত্রিকতা’—এটা একটা সামাজিক বিষয়। সমাজ বদলালে বিষয়টা বদলে যাবে।

  • এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।